কিভাবে অপচয়ের বৃত্ত থেকে বের হবেন?

অপচয়ের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসতে হলে আমাদের ছোট ছোট কিছু কাজ করতে হবে। জীবনের দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন নিয়ে আসতে হবে। আমরা আসলে দুর্দশার বৃত্তে আবদ্ধ হয়ে থাকি। আমরা সাধারণত অপচয়ের জন্যে ধনীদের দায়ী করি। কিন্তু অপচয় শুধু ধনীরাই করে না, অপচয়ের প্রবনতা আসলে ধনী-দরিদ্র, উচ্চবিত্ত-নিম্নবিত্ত-সব শ্রেনীর মধ্যেই রয়েছে। বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে ধনীদের চেয়ে গরিবরাই অপচয় করে বেশি। বিনিয়োগের ছদ্মাবরণে ধনীদের আপাত  ব্য্যবাহুল্য দেখে আমরা বিভ্রান্ত হলেও, বুঝি না যে, সেটা তিনি করছেন ভবিষ্যৎ লাভের কথা মাথায় রেখেই। কিন্তু গরিব অপচয় করে ফেলছে তার অপরিণামদর্শিতার কারণে। সঠিক জীবনদৃষ্টির অভাবের কারণে।

এ থেকে বেরিয়ে আসতে হলে আমাদের ব্যয় করতে হবে আয় অনুসারে, অপব্যয় করা যাবে না। ফালতু ফুতানি করতে গিয়ে এমন কোনো বাহুল্য খরচ করা যাবে না যার পরিণাম ভয়ঙ্কর। আমরা জানি, কবিগুরুর সেই বিখ্যাত দুই বিঘা জমি কবিতার কথা- ঋন নিয়ে ধুমধাম করে মেয়ের বিয়ে দিতে গিয়ে দরিদ্র উপেনকে কীভাবে সহায়সম্পত্তি সব হারাতে হয়েছিলো।

কাজেই নিজের সর্বনাশ করবেন না। লোকলজ্জা থেকে বাঁচতে গিয়ে নিজের সব কিছু খোয়াবেন না। ভ্রান্ত সামাজিক সংস্কারের বলি হবেন না। আমাদের আজকের দুর্দশার অন্যতম কারণ ভ্রান্ত সংস্কার দ্বারা প্রভাবিত অপচয়। অপচয়কারী, অপব্যয়কারী হচ্ছে শয়তানের ভাই। শয়তান যেহেতু অভিশপ্ত, শয়তানের ভাই বা বোন হলে আপনারও অভিশাপ থেকে রক্ষা পাওয়া কঠিন। তবে মনে রাখবেন, অপচয় আর ব্যয় এক নয়। প্র্যয়োজনীয় ব্যয় করতে পারাটাও একটা আর্ট। প্রয়োজনীয় ব্যয় করতে পারলেই আপনি আপনার আয় বারাতে পারবেন। কমতে থাকবে আপনার অভাব-অশান্তি।

কিন্তু অপচয় করবেন না। পণ্যদাসে রূপান্তরিত হবেন না। আসলে অপব্যয়ের মূল কারণ পন্যদাসত্ব বা কনজ্যুমারিজম। আমরা বিজ্ঞাপনে এতই প্রভাবিত হই যে, আমরা ভাবি, আমাদের আসল পরিচয়- আমরা মানুষ না, আমরা ক্রেতা। কনজ্যুমারিজম আমাদের একটা জিনিসই শিখিয়েছে যে, আমাদের একটাই পরিচয়- আমরা কনজ্যুমার। আমরা কিনবো যাতে করে তারা লাভবান হতে পারে। কেনার উন্মাদনা, একটার পর একটা। শুধু কেনাতে হবে, এ কারণে একটার পর একটা প্যাকেজ। যেন লোকে মনে করে- এতা নতুন, এটা কিন্তেই হবে। সবসময় কেবল মডেল পরিবর্তন। যেন আপনি কেনার জোশে থাকেন সবসময়। কেনার একটা উন্মাদনা যেন আপনার মধ্যে থাকে। তাহলে তারা লাভবান হবে। এই উন্মাদনা থেকে মুক্ত থাকবেন। তাহলেই আপনি বেরিয়ে আস্তে পারবেন অপচয়ের বৃত্ত থেকে।

হাজারো প্রশ্নের জবাব-২ 

মহাজাতক

নিচে কমেন্টস বক্সে আর্টিকেল বিষয়ে মতামত দিন

শেয়ার করার মাধ্যমে আপনার বন্ধুদের এই আর্টিকেল বিষয়ে জানার সুযোগ করে দিন