রাতে ভালো ঘুম হওয়ার উপায়

দিনে প্রানবন্ত এবং সতেজ থাকা আর সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য রাতে ভাল ঘুম হওয়ার উপায় অনুশীলন অপরিহার্য। যদি আপনি রাতের ঘুম নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকেন তাহলে এই আর্টিকেলটি পড়ুন। পরিতৃপ্তি নিয়ে ঘুমানো আপনার জন্য সহজতর হবে এ বিষয়ে নিশ্চিত থাকুন।

সন্ধ্যায় গোসল করুন/ শাওয়ার নিনঃ

সন্ধ্যায় গোসল করলে সারাদিনের ক্লান্তি দূর হয়ে যেমন আরাম পাবেন তেমনি এটা আপনার রাতের ঘুমকে গভীর করবে। গোসল করার পর একটি ভাল ব্রান্ডের লোশন ব্যবহার করে ঘুমালে আপনার ত্বক যেমন ময়েশ্চার হবে সেরকম ঘুম ও আরামদায়ক হবে। রাতে ভালো ঘুম হওয়ার উপায় গুলোর মধ্যে এটি অধিক কার্যকরি।

যথোপযুক্ত/ স্বস্তিদায়ক বালিশ ব্যবহার করুনঃ

রাতে ভালো ঘুম হওয়ার উপায় এর ২ নম্বর উপায় হলো-স্বস্তিদায়ক বালিশ ব্যবহার করুন। বালিশ ব্যবহারে বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিন। বালিশ খুব নরম হলে মাথা নিচের দিকে নেমে যাবে যা মাথা ব্যাথার কারন হতে পারে। আপনি যদি বাম/ডান পাশে ফিরে ঘুমান তাহলে দুই পায়ের মাঝে একটি বালিশ ব্যবহার করুন। এটি কোমরের উপর থেকে চাপ কমাবে এবং ঘুমিয়ে আরাম পাবেন। আর চিৎ হয়ে ঘুমালে পায়ের নিচে বালিশ দিয়ে ঘুমাতে পারেন।

ঘুমানোর ৩ ঘন্টা আগে রাতের খাবারঃ

খেয়ে সাথে সাথে শুয়ে গেলে খাবার হজমে অসুবিধা হয় এবং ঘুমে ব্যাঘাত ঘটে। আর রাতে ভারী খাবার ঘুমের গভীরতা হ্রাস করে পাশাপাশি এটি ঝুঁকিপূর্ণ ও অস্বাস্থ্যকর। রাতে ভালো ঘুমানোর উপায় খুজলে এসব মেনে চলতেই হবে। তাই যথা সম্ভব রাতে স্পাইসি খাবার, তেল, ঝাল ও চর্বি জাতীয় খাবার বর্জন করুন।

খালি পেটে ঘুমাবেন নাঃ

ভরা পেটে যেমন ঘুমানো উচিত না সেরকম রাতে না খেয়ে ঘুমানোটাও গভীর ঘুমের ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। তাই কখনই খালি পেটে ঘুমাবেন না আর রাতের খাবার হিসেবে অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট ও চিনি গ্রহন থেক বিরত থাকুন।

ক্যাফেইন বাদ দিনঃ

কফি, ব্ল্যাক টি থেকে শুরু করে ক্যাফেইন জাতীয় সকল খাবার ও পানীয় খাবার তালিকা থেকে পুরোপুরি বর্জন করুন। দিনের শুরুতে  ক্যাফেইন গ্রহন করলেও এটি  রাতের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে  পারে। ক্যাফেইন এর প্রভাব আপনার শরীরে ১২ ঘন্টা পর্যন্ত  থাকবে যা আপনার বিরক্তি আর নিদ্রাহীনতার কারন হবে।

ঘুমানোর এক ঘন্টা আগ থেকে পানি/তরল গ্রহন থেকে বিরত থাকুনঃ

দিনে কমপক্ষে ২ লিটার পানি পান নিশ্চিত করুন, দিনে পর্যাপ্ত পানি পান রাতের তৃষ্ণা কমায়। রাতে বেশি পানি পান আপনার প্রস্রাবের মাত্রা বাড়াতে পারে। তাই রাতে ঘুমানোর ১ ঘন্টা আগ থেকেই পানি পান থেকে বিরত থাকুন।

প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময় ঘুমান এবং জেগে উঠুনঃ

একেক দিন একেক সময়ে ঘুমালে আপনার ঘুমের ছন্দ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই প্রতিদিন একই সময়ে জেগে উঠা এবং একই সময়ে ঘুমানোর অভ্যাস করুন। কখনও ঘুমাতে দেরী হলেও নির্দিষ্ট সময়েই জেগে উঠুন।

শিথিলায়ন করুনঃ

আরামদায়ক ভঙ্গিতে বসে সহজ শিথিলায়ন করুন। এতে আপানার ঘুমের গভীরতা অনেক বেড়ে যাবে। হালকাভাবে চোখ বন্ধ করে, সারা দিনের সকল সমস্যা এবংসম্ভাবনা ভাবুন। সমস্যাগুলো সমাধান হয়ে গেছে কল্পনা করুন। মনের এই স্তরে ইতিবাচক প্রোগ্রেমিং দিলে মন তাতে সাড়া দেয় তাই ভাবুন যে আপনার সমস্যার সহজ সমাধান হয়ে গেছে। প্রতিদিন ১০ মিনিট এভাবে শিথিলায়ন এবং ব্রেনকে প্রোগ্রাম দিলে, দেহ মন শান্ত থাকে এবং রাতের ঘুম ভাল হয়।

উপরের উল্লেখিত রাতে ভালো ঘুম হওয়ার উপায় গুলো ভালো ভাবে মেনে চলতে পারলে রাতে ভালো ঘুম ঘুমিয়ে প্রানবন্ত এবং সতেজতায় ভরপুর দিন উপভোগ করতে পারবেন।