ভাল থাকুক ভালোবাসা, প্রেম রোগ কাম্য নয়

 


লেখকের ফেসবুক পেজ


ভালবাসা এক মানবিক অনুভূতি, পবিত্র এবং আত্মিক শব্দ। পৃথীবি সৃষ্টির পর থেকেই এই ‘ভালোবাসা’ নিয়ে রচিত হয়েছে অসংখ্য ভালোবাসার গল্প, কবিতা।মানুষের প্রতি মানুষের, অন্যান্য জীব-জন্তুর, পোষা প্রাণীর এবং পোষা প্রানিদের প্রতি মানুষের ভালবাসা হতে পারে।আশরাফুল মাখলুকাত হিসেবে ভালবাসা উপলব্ধি করার, ভালোবাসার কথা, ঘটনা শুনে বিমোহিত হওয়ার এক আশ্চর্য্য ক্ষমতা  রয়েছে এই মনুষ্য জাতির। সেই সাথে মানুষের প্রতি মানুষের ভালোবাসা থাকা এবং এরকম হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসার গল্প শুনে, ভালোবাসার কবিতা শুনে অবাক হওয়ার মত ঘটনা রয়েছে অনেকগুলো।

ভালবাসা বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। কখনো কখনো এই ধরনগুলো কলমের ডগা দিয়ে লিখিত রুপ দেয়া বেশ দুরুহ। নিষ্কাম ভালোবাসা, কামরুপ ভালোবাসা, ধর্মীয় ভালোবাসা, আত্মীয়দের প্রতি ভালোবাসা, পোষ্য প্রানীদের প্রতি, কোন বস্তুর প্রতি ভালবাসা, মায়া বা মোহ হতে সৃষ্ট ভালোবাসা, যৌণকাম রুপে সৃষ্ট ভালোবাসা, কথা বলতে বলতে সৃষ্ট ভালবাসাসহ আরও অনেক প্যাটার্নের ভালোবাসা হতে পারে।

যত ধরনের ভালোবাসা আছে সব হবে নিস্বার্থ এবং কোন কিছুর বিনিময় ছাড়া। কিন্তু পরিস্থিতি সব সময় এক রকম থাকে না। কথায় আছে- ভালো লাগা থেকে ভালোবাসা। এই ভালোবাসা সম্পর্কে রুপ নেয় কখনো কখনো যার পরিনতি প্রেম, যৌণতা এবং পরিশেষে বিয়ে। কখন, কিভাবে, কোন মুহুর্তে ভালোবাসা মানুষের মনকে ছুঁয়ে যায় তা মানুষ নিজেও বুঝতে পারেনা। এটি বিপরীত লিঙ্গের ক্ষেত্রে অর্থাৎ ছেলেতে মেয়েতে বেশি হয়ে থাকে। আমরা বরাবরই দেখে আসছি এবং অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি যে- বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আমাদের আকর্ষন বেশি থাকে। এই কারণে ভালোবাসা তৈরিও হয়ে যায় খুব দ্রুত।


Related Post: ব্রেকআপের কষ্ট থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়


ভালোবাসা কি এটি এক কথায় যদি বলি তাহলে বলতে হবেঃ বিশেষ কোন মানুষের জন্য অন্তরের ভিতর থেকে স্নেহের শক্তিশালী বহিঃপ্রকাশ।

ভালোবাসা কি এটি যদি আরো সহজ করে বলি তাহলে বলতে হবেঃ ভালোবাসা একটি ব্যক্তিগত অনুভূতি যেটি একজন মানুষ আরেকজনের প্রতি অনুভব করে।

ভালোবাসা কি এটি যদি বিস্তারিত ভাবে বলি তাহলে বলবোঃ যার প্রতি নির্ভর করা যায় ফিউচারের জন্য, যাকে কাছে পেলে বা পেতে প্রবল আকর্ষন অনুভূত হয়, একে অন্যের প্রতিক্ষা করে, দেখার জন্য আকুতি থাকে, কাছে পেলে পাগল হয়ে যায়, দুটি মানুষ নিজেদের আঁকড়ে ধরে বাঁচতে চায়।

ভালোবাসার আবেগের প্রকাশ নর-নারী চিরকাল বাঁধতে চেয়েছে ভাষায়, শব্দে, উপহারে, আলিঙ্গনে। কিন্তু এই স্বর্গীয় শব্দ- প্রেম ভালবাসা এগুলোর সাথে বাস্তব জীবন অনেক সময়েই বেখাপ্পা হয়ে যায়, মিল পাওয়া যায় না। ভালোবাসার পরিপূর্ণ মানে, ভালোবাসা কি, কাকে ভালোবাসা যায়, কাকে যায় না এসব না জেনেই আবেগীয় সম্পর্কে জড়িয়ে যান অনেকেই যেটি কারও কারও জন্য বিরহের, কষ্টের এবং দুখের কারণ হয় যখন তাদের প্রিয়জন অন্য কারো হয়ে যায় বা অন্য কারও সাথে সম্পর্কে চলে যান।

এই চলে যাওয়া বা গোপনে অন্য কারও সাথে যোগাযোগ একটা রোগ যেটিকে প্রেম রোগ বলা যায়। প্রেম রোগ যাদের থাকে তারা সম্পর্কের মূল্য বা গুরুত্ব বোঝেন না, বোঝেন দিল্লির লাড্ডু খাওয়ার পরে, মানে পস্তানোর পরে।

প্রেম রোগের, পরকীয়ার, একাধিক সম্পর্কের অন্যতম কারণ প্রযুক্তির সহজলভ্য ব্যবহার।কেননা বর্তমান যুগের প্রযুক্তির কল্যানে, যোগাযোগ প্রক্রিয়া হয়েছে যেমন সহজতর তেমনি নষ্ট হয়েছে পবিত্রতম, স্বর্গীয় অনুভূতি প্রকাশক প্রেম এবং ভালোবাসা। শুধু যদি যোগাযোগ প্রক্রিয়ার দোষ দেই তাহলে একতরফা হয়ে যাবে। ভালো-বাসা মানে কি, প্রেম কি, সম্পর্ক কি, এসব যারা জানে না, জানলেও মানে না, টাইম পাস করার জন্য, হাত খরচ যোগানোর জন্য, আমার বয় ফ্রেন্ড/গার্ল ফ্রেন্ড আছে এটা বোঝানোর জন্য যারা প্রেম বা সম্পর্ক গড়েন, যারা তথাকথিত আধুনিকতায় মত্ত- একাধিক ছেলে/মেয়ের সাথে ভালো-বাসার কথা, চ্যাটিং, যোগাযোগ, দেখা করা যাদের  কাছে স্বাভাবিক ঘটনা, যারা জামা কাপড়ের মত বিএফ/জিএফ পাল্টায়,  স্ট্যাটাস-অর্থ-বিত্তের দিকে ফোকাস দিয়ে যারা সম্পর্ক গড়েন- এদের ক্ষেত্রে যোগাযোগ ব্যবস্থা কঠিন করে দিলেও বিকল্প মাধ্যম ব্যবহার করে এক বা একাধিক ছেলের সাথে যোগাযোগ রাখতে পারেন বা সম্পর্ক গড়তে পারেন। এমন ধরনের মানুষের জন্যই নিগৃহিত হচ্ছে আমাদের সমাজ, কুলষিত হচ্ছে প্রেম-ভালো-বাসা নামক শব্দটি।

আমরা এই চর্চা থেকে বেরিয়ে আসতে চাই। প্রেম রোগ থেকে, প্রিয়জনকে ঠকানো থেকে, ডাবল টাইমিং থেকে সব সময় বিরত থাকব। যারা ভালো মানুষ, তারা সব সময় বর্তমান সম্পর্কে মনযোগি থাকেন, সম্পর্কে মূল্য এবং সম্মান দেন। অন্যকে ধোকা দিয়ে, ছেড়ে চলে গিয়ে, ঠকিয়ে চলে যাওয়ার থেকে ভালোবাসার আগে বা পরিচিত হওয়ার সময় বুঝে শুনে ঠান্ডা মাথায় সিদ্ধান্ত নিয়ে আমরা সম্পর্ক গড়ব।

আর যদি আমরা বর্তমানে কোন ভালো-বাসা বা প্রেমের সম্পর্কে থাকি তাহলে prem rog –এ আক্রান্ত না হয়ে সম্পর্কের প্রতি সৎ হব, দায়িত্বশীল হব। প্রিয়জনের প্রতি, ভা কোন ধরনের অবহেলা, গাফিলতি, অবজ্ঞা না করে সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা করব। সব সময় মনে লালন করব তাকে- amar moner manush bondhu tumi. অবজ্ঞা ও অবহেলা সম্পর্ককে আরো জটিল দিকে নিয়ে যেতে পারে।

প্রেম রোগকে না বলে, একাধিক পার্টনার না রেখে আমরা ভালোবাসার মানুষটির বিশ্বাস বজায় রাখবো। ছোট্ট ছিদ্র যেমন জাহাজকে ডুবিয়ে দিতে পারে, ছোট ছোট ভুলও বিশ্বাস ভেঙ্গে ফেলতে পারে। বিশ্বাস একবার ভাঙ্গলে, সম্পর্ক একটা সন্দেহে পরিনত হয়। এর পরেই ভালবাসা বেসুরো হয়ে যায়। তাই যে কোন মূল্যে বিশ্বাস আর আস্থার জায়গাটা ঠিক রাখতে হবে। একটি সম্পর্ক রেখে গোপনে যারা আরেকটি প্রেমের সম্পর্ক, Just Friend মার্কা সম্পর্ক করে তারা ভালো মনের মানুষ হতে পারেন না।

সেই সাথে এটি করা প্রতারণার শামিল। নৈতিকতা বোধ থাকাটা খুব জরুরি।

ভালো থাকুক সবার valobasa, প্রেম রোগ কাম্য নয়।

নিচে কমেন্টস বক্সে আর্টিকেল বিষয়ে মতামত দিন

শেয়ার করার মাধ্যমে আপনার বন্ধুদের এই আর্টিকেল বিষয়ে জানার সুযোগ করে দিন