কিভাবে মেয়েদের ভালবাসার আগে টেস্ট করতে হয়

প্রেম স্বর্গীয়। নিজেকে বিশ্বপ্রেমিক ভাবতে কার না ভালো লাগে! তাই কাউকে ভালবাসার আগে মনে রাখতে হবে- স্বর্গীয় প্রেম হচ্ছে অকাতরে নিজেকে উজাড় করে দেয়ার নাম। তাই সুন্দর কাউকে ভালো লাগার মধ্যে কোন দোষ নেই, যদি বিষয়টি সীমার মধ্যে থাকে। তবে আমরা যেটাকে প্রেম বলছি সেটা আসলে নরনারীর প্রতি একটা স্বাভাবিক আকর্ষন। মাদক যেমন একজন মানুষের সুস্থ বোধবুদ্ধি নাশ করে ফেলে, প্রেমাসক্তিও তাই করে।


Related Post: কিভাবে রাতে ভালো ঘুমাবেন


তবে মর্ত্যে আসতে আসতে এর মধ্যে নানা বৈষয়িক মিশেলে কোনো কোনো ক্ষেত্রে এই প্রেম কিছু ছেলে ও মেয়েদের কাছে হয়ে গেছে খেলা। যেটার সৃষ্টি তীব্র আবেগ, যৌণ চাহিদা ও জৈবিক আকর্ষন থেকে। যেখানে ছেলেটি জানে- সে প্রেম করছে না, মেয়েটিও জানে- সেও প্রেম করছে না, কেবল প্রেমের অভিনয় করছে। যার পরিনতি অনিয়ন্ত্রিত যৌনাচার এবং সীমালঙ্ঘন। কিন্তু যেসব ছেলেরা সত্যিই কোন মেয়েকে মন থেকে ভালবাসতে চায় বা ভালোবেসে থাকে, পরবর্তীতে দেখা যায় তাঁদের দুঃখের কোন সীমা থাকে না। তারা ছ্যাকা খেয়ে ব্যাকা হয়ে যান। তাই কাউকে ভালবাসার আগে প্রেমিকাকে ভালভাবে চেনার উপায় জেনে-বুঝে সামনে আগানো বুদ্ধিমানের কাজ হবে, না হয় কপালে দুঃখ থাকতে পারে এসব প্রেমিকদের।

আর সেজন্যেই কাউকে ভালোবাসার আগে প্রেমিকা চেনার উপায়, মেয়েদের অতীত প্রেমের কাহিনী সম্পর্কে জেনে মেয়েদের সাথে প্রেমের কথা বার্তা বললে বা মন দিলে- আপনার দুঃখ পাওয়ার সম্ভাবনা কমবে। তাই চলুন জেনে নেই কাউকে মন থেকে ভালবাসার আগে ছেলেদের করনীয় গুলো কি কিঃ-


 ➡ চোখ কান খোলা রেখে- সচেতন ভাবে তথ্য সংগ্রহ করুন

ছেলেরা প্রেম করার জন্য এতই উতলা থাকে যে একটা মেয়েকে বাহ্যিক ভাবে দেখেই সে এক সেকেন্ডে সিদ্ধান্ত নিয়ে নেয়- এই মেয়ের জন্য সে জীবন দিবে। দরকার হলে হাতিরপুল থেকে ঝাঁপ দিবে। তাও এই মেয়েকেই সে ভালোবাসবে, বিয়ে করবে। কিন্তু যদি এত আবেগি না হয়ে একটু সময় নিয়ে মেয়েটির অন্য কোন প্রেমের কথা/কাহিনী আছে কিনা জানার চেস্টা করত, প্রেমিকা চেনার উপায় গুলো প্রয়োগ করতো, তাহলে হয়তো শেষ পরিনতি ছেলেদের জন্য এত করুণ হত না। তাই সব সময় মনে রাখবেন, দেশে মেয়ের অভাব নাই। আপনি যার জন্য সময় নস্ট করবেন, যাকে মনে জায়গা দিবেন, কল্পনায় লালন করবেন, সে আপনার ভালবাসা পাওয়ার আসলেই য্যোগ্য কিনা সেটি আগে জানুন! যদি যোগ্য হয় আলহামদুলিল্লাহ, কিন্তু তার সম্পর্কে খোঁজ না নিয়ে, তথ্য না জেনে এক বসায় বা এক কথায় সিদ্ধান্ত নিবেন না। তাহলে আপনি উপকৃত হবে, লাভবান হবেন।


 ➡ শুরুতেই দুর্বল হবেন না

প্রেমের শুরুতে যখন কথা বার্তা প্রাথমিক পর্যায়ে থাকে তখনি ছেলেদের ঘুম হারাম, খাওয়া নাই দাওয়া নাই, গা নাই এমনকি গোসল পর্যন্ত নাই এমন অবস্থা হয়ে যায়। শয়নে স্বপনে আহারে বিহারে সে তখন শুধু তার অনিশ্চিত কল্পনার রানীর কথা ভাবতে থাকে, আর আমরা জানি চিন্তা বাস্তবতার জন্ম দেয়, একাদারে এক মেয়ের কথা এতো মনোযোগ দিয়ে ভাবার ফলে আমাদের ব্রেন মেয়েটির প্রতি সিরিয়াস হয়ে যায় এবং ছেলেটি দুর্বল হয়ে যায় মেয়েটির প্রতি। কিন্তু শুরুতে এত দুর্বল হয়ে যাওয়া কিন্তু ছ্যাকা খাওয়া পাবলিকের লক্ষণ। তাই অবশ্যই দুর্বল হবেন, তাকে ভালবাসবেন কিন্তু ধীরে ধীরে, সময় নিয়ে, বুঝে শুনে, তাহলে মেয়েটি আপনাকে মুরগী বানাতে পারবেনা, আর যদি মেয়েটি দেখে আপনি দুর্বল হয়ে গেছেন, আপনাকে সে জয় করে ফেলেছে, তাহলে সে আপনার প্রতি আগ্রহ হারাবে, অন্য দিকে নজর দিবে। তাই সীমার ভিতরে থাকবেন, ধীরে ধীরে আগাবেন, হয় থাকবে না হয় চলে যাবে, এত পাগল হওয়ার কিছু নেই, আপনি নিজে দুর্বল না হয়ে তাকে কিভাবে দুর্বল করা যায় সে দিকে মনোযোগ দিন, আপনার প্রেমিকা চেনার উপায় কাজে লাগান, তাহলে আপনি দুঃখ পাবেন না।


 ➡ মেয়েটির বান্ধবীর সাথে বন্ধুত্ব করুন

বান্ধবীদের কাছে গোপন খবর আছে, এটা মাথায় রাখবেন। সে জন্য মেয়েটির বান্ধবীর দরকার আছে আপনার। কিন্তু দ্রুত বান্ধবীর সাথে সম্পর্ক করার চেস্টা করবেন না, বান্ধবীকে ছোট খাট সাহায্য করুন, তার মন জয় করুন, বিশ্বাস অর্জন করুন, বান্ধবী নিজেই সব আপনাকে বলে দিবে যে আপনার প্রেমিকা আপনাকে কতটুকু ফিল করে।


 ➡ পোশাক পরিচ্ছদ খেয়াল করুন

পোশাক একটি মেয়ের চিন্তা ভাবনা, রুচির পরিচয় দিয়ে থাকে। আপনি যদি ধর্মীয় মেন্টালিটির হয়ে থাকেন আর আপনার গার্ল ফ্রেন্ড যদি আধুনিক মানসিকতার হয়, তাহলে কেমন সুখে থাকবেন সেটা বুঝতেই পারছেন। তাই তার পোশাকের ধরন খেয়াল করুন তাহলে আপনি কিছুটা হলেও আঁচ করতে পারবেন যে আপনার প্রিয়তমা কতটুকু ভাল বা মন্দ।


 ➡ মেয়েটির চিন্তা ভাবনা সম্পর্কে ক্লিয়ার হোউন

যে মানুষের চিন্তা ভাবনাই অসচ্ছ, অপরিণত তার সাথে আপনি সংসার করবেন? মূল্যবান সময় নস্ট করবেন? নিজের ক্যারিয়ারের ক্ষতি করবেন? নিশ্চয়ই না। আর আপনার থেকে আপনার পরিবার এটা আশাও করে না। তাই যদি আপনার হবু প্রেমিকা উন্নত চিন্তার বাহক হয়ে থাকেন, তাহলে নির্দিধায় তার সাথে রিলেশনশিপে আগাতে পারেন, কারণ চিন্তা ভাবনাই মানুষকে মানুষ বানায় আবার অমানুষও বানায়।


 ➡ ছেলে বন্ধুদের সাথে মেয়েটির আচরন লক্ষ্য করুন

মেয়েদের প্রেমের অভিনয়ের কথা তো আগেও শুনেছেন, তারা খেলতে পারে যে কোন ছেলেদের সাথে, এখন কথা হচ্ছে আপনি কি কাউকে আপনাকে নিয়ে খেলার সুযোগ দিবেন, নাকি আপনি তাঁদের নিয়ে খেলবেন? মেয়েটি আপনাকে নিয়ে গেম খেলছে কিনা এটা বুঝতে পারবেন সে তার ছেলে বন্ধুদের সাথে কেমন করে চলাফেরা করে এবং চলাফেরার ধরনটা কেমন। যদি দেখেন মেয়েটি তার ছেলে বন্ধুদের সাথে খুব ক্লোজ এবং প্রায় সময় তাঁদের সাথে ঘুরতে যায়, হাত ধরাধরি করে, হাসি তামাশা করে কিন্তু আপনাকে তার হাতও ধরতে দেয় না, তাহলে অনেক কিছুই এখানে পরিস্কার হয়ে যায়। তাই খুব সাবধানে দূর থেকে উত্তেজিত না হয়ে মেয়েটির দিকে দৃস্টি রাখুন। হয়ত আপনি কোন বড় আজাব থেকে, গজব থেকে বাঁচবেন।


 ➡ মিথ্যে কথা বলার হার

সত্য মিথ্যা খুব বড় পরিমাপক একজন মানুষের জীবন পরিমাপের জন্য। মিথ্যায় কোন শান্তি নেই আছে অশান্তি; কিন্তু সত্যে আছে সর্গীয় সুখের ছোঁয়া। আর যে আজ মিথ্যে বলেছে সে সারা জীবন মিথ্যে বলতে পারবে আপনার সাথে। আবার মিথ্যে বললেও কোন প্রেক্ষাপটে বলেছে সেটি বিবেচনা করে দেখুন সে মিথ্যা কথা বলায় কতটুকু অগ্রগামী। নাকি এটা তার নিত্য দিনের অভ্যাস? এই বিষয়টি একজন মানুষকে জানার জন্য যথেস্ট। তাই তার প্রত্যেকটি কথা খেয়াল করুন এবং বিশ্লেষন করুন।


 ➡ ফেসবুক-মেসেঞ্জার চেক করুন

যদি সুযোগ থাকে তাহলে ফেসবুক মেসেঞ্জার চেক করা হবে আপনার জন্য সেরা উপায়- আপনার প্রেমিকাকে চেনার জন্য। সুযোগ খুঁজতে থাকুন সুযোগের অপেক্ষায় থাকুন তার আইডি এবং মেসেঞ্জার চেক করার জন্য। এটি আপনাকে সকল প্রশ্নের উত্তর দিয়ে দিবে। যদি সে আপনার মোবাইলে কখনো লগ ইন করে তাহলে মোবাইল রেকর্ডার এপ্স চালু করে রাখুন। তবে সাবধানে এই কাজটি করতে হবে। আমার এক বন্ধু তার গার্ল ফ্রেন্ডের মেসেঞ্জার চেক করার পর স্ট্রোক করার মত অবস্থা হয়ে গেছে, আল্লাহ নিজ হাতে তাকে বাঁচিয়েছে। মেয়েটি ৫/৬টি রিলেশন একসাথে মেইন্টেইন করছিলো, সেই সাথে এক ছেলের সাথে তার পিজিকেল রিলেশনের আলামতও পাওয়া গেছে। নাউযুবিল্লাহ। 


 ➡ যৌণ বিষয়ে মেয়েটির আগ্রহ লক্ষ্য করুন

আপনার গার্ল ফেন্ডের দৃষ্টি কি আপনার টাকার দিকে? নাকি যৌনতার দিকে সেটি খেয়াল করুন। যদি যৌণ বিষয়ে তার আগ্রহ বেশি থাকে তাহলে জরুরি হয়ে যায় এটা জানা যে তার কোন অতীত আছে কিনা যেখানে সে এই যৌণতার সাথে পরিচিত হয়েছে। নাকি শুধু স্রেফ আপনাকে ভালবেসেই এই পথে আগাতে চাচ্ছে।


 ➡ আপনার চিন্তা ধারা আর মেয়েটির চিন্তা ধারা বিশ্লেষন করুন

দেখুন, মেয়েদের পিছনে ঘুরাটা সবার জন্যে, আপনার জন্যে আসলে খারাপ একটি দিক। যদি আপনি নিজেকে যোগ্য করে গড়ে তুলতে পারেন, তাহলে অসংখ্য মেয়ে আমাদের দৃস্টি আকর্ষনের চেস্টা করবে। তাই ভাল ভাবে মেয়েটি সম্পর্কে জেনে- তার চিন্তা ভাবনা এবং আপনার চিন্তা ভাবনা মিলিয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে সামনে আগানো আপনার জন্য ভাল হবে।


Related Post: কিভাবে রাতে ভালো ঘুমাবেন


তবে মনে রাখবেন, মেয়েটিকে অহেতুক সন্দেহ করবে না। বিশ্বাস করলে ভাল ভাবে করবেন, তবে বিশ্বাস করার আগে সময় নিবেন, জানবেন, কিন্তু একবার বিশ্বাস করলে ভাল করে করবেন। সবসময় মনে রাখবেন- সন্দেহ একটা মানসিক রোগ। তাই জীবন আপনার, যেটাই করবেন, জেনে বুঝে সময় নিয়ে করবেন, আপনি ভুল করবেন না, সুখী থাকবেন।

আর একজন পরামর্শক হিসেবে আমি বলবো, প্রেম না করে, সুযোগ থাকলে পারিবারিক ভাবে বিয়ে করে ফেলাই বেটার।

নিচে কমেন্টস বক্সে আর্টিকেল বিষয়ে মতামত দিন

শেয়ার করার মাধ্যমে আপনার বন্ধুদের এই আর্টিকেল বিষয়ে জানার সুযোগ করে দিন