রসুনের উপকারিতা

রসুনের মধ্যে রয়েছে নানা পুষ্টিগুন। এটি আমাদের শরীরকে ভালো রাখতে সাহায্য করে। রসুন রান্না করা ছাড়াও রয়েছে বিবিধ গুণ। রসুনের উপকারিতা অনেক। আমরা অনেকে রসুনের উপকারিতা সম্পর্কে কিছুই জানি না। রসুনের উপকারিতা সম্পর্কে না জানার কারণে অনেক গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিগুনাগুণ সম্পর্কে জানতে পারি না।

সকালে খালি পেটে রসুন খাওয়া আমাদের শরীরের জন্য অনেক ভাল। তবে অনেকের কাছে সকালে খালি পেটে রসুন খাওয়া অস্বাস্থ্যকর মনে হয়। রসুনের উপকারিতা বিভিন্ন রোগ দূর এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। রসুনের মধ্যে রয়েছে ময়শ্চার, প্রোটিন, ফ্যাট, মিনারেল ফাইবার ও কার্বোহাইড্রেট। ঔষধি গুনাগুণের জন্য রসুনের চাহিদা অনেক বেশি। রসুন আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। যদি আমাদের শরীরে কোন ভাইরাস আক্রমন করে রসুন তা কাটিয়ে নিতে সাহায্য করে।


Related Post: সজনে পাতার উপকারিতা


চলুন বিস্তারিতভাবে জেনে নিই রসুনের উপকারিতা কিঃ

রক্তচাপ কমাতেঃ উচ্চ  রক্তচাপ আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে রসুনের উপকারিতা অনেক। হার্ট অ্যাটাক এবং স্টোক এর কারণে মানুষের বেশি মৃত্যু হয়। নিয়মিত দুইকোয়া কোয়া রসুন রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করবে।

কোলেস্টেরল কমাতেঃ কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রনে থাকা ভাল। আমরা যদি নিয়মিত এককোয়া রসুন খেতে পারি তাহলে আমাদের কোলেস্টরলের মাত্রা ৯ শতাংশ কমে যাবে।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনেঃ অধিকাংশ মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়ে থাকে। ডায়াবেটিস বেড়ে যাওয়া আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর। ডায়াবেটিস কন্ট্রলে রাখতে রসুনের উপকারিতা অনেক বেশি। যারা বেশি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়ে থাকে তাদের অনেকে কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে। তাই ডায়বেটিস থেকে রক্ষা পেতে হলে প্রতিদিন দুইকোয়া রসুন খাওয়া আমাদের জন্য অনেক কার্যকর।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতেঃ রসুনে রয়েছে ফাইটোনিউট্রিয়েন্স যা দেহের মধ্যে জমতে থাকা ক্ষতিকর টক্সিক দূর করতে সাহায্য করে। আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো উচিত। কারণ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়লে আমাদের শরীরে কোন ভাইরাস আক্রমণ করতে পারবে না। তাই আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য বেশি বেশি রসুন খেতে হবে।

জ্বরে আক্রান্ত হলেঃ জ্বর সবারই হয়ে থাকে। জ্বর-স্বর্দি-কাশি দ্রুত সেরে উঠতে রসুনের উপকারিতা অনেক। দুই কোয়া রসুন  খেলে এই শারীরিক সম্যাসাগুলো থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

ত্বক সুন্দর রাখতেঃ ত্বকে অনেক ধরণের ক্ষতিকর উপাদান থাকে। যেগুলো আমাদের ত্বকের সৌন্দয্য নষ্ট করে দেয়। তাই আমাদের ত্বক সুন্দর রাখতে নিয়মিত রসুন খাওয়া অত্যন্ত জরুরী।

হাড় মজবুত করতেঃ নিয়মিত দুই কোয়া রসুন খেলে দেহের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটারির মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে। যার ফলে যেকোনো কাজ আমরা সহজে করতে পারব।

যক্ষা প্রতিরোধ করতেঃ অনেকেই যক্ষা রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে। কিন্তু খুব তাড়াতাড়ি এর কোন সুফল পাওয়া যায় না। তাই যক্ষা রোগে আক্রান্ত হলে নিয়মিত রসুন খেলে এর থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। রসুন খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায় আর এইজন্যই সহজে আমরা বিভিন্ন রোগ থেকে দ্রুত রক্ষা পেয়ে থাকি।

হৃদরোগ প্রতিরোধেঃ যারা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে তারা যদি নিয়মিত রসুন খান তাহলে হৃদরোগ দ্রুত সেরে যাবে। এই রোগে সাধারণত সবাই আক্রান্ত হয়ে থাকে। হৃদরোগে আক্রান্ত হলে পেট ব্যাথা এত বেশি হয় যে অজ্ঞান পর্যন্ত হয়ে যায়। হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে রসুন অনেক কার্যকর। নিয়মিত রসুন খেলে ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাসজনিত রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

চুল পড়া কমাতেঃ রসুন যেমন চুল গজাতে সাহায্য করে তেমনি চুল পড়া কমাতেও সাহায্য করে। অনেকেই বিভিন্ন ধরণের উপাদান ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু সবথেকে বেশি উপকার হয়ে থাকে রসুনের রস দিলে। সাপ্তাহে দুদিন রসুনের রস চুলে ব্যবহার করলে চুল পড়া কমে যাবে তাড়াতাড়ি।

ওজন কমাতেঃ শরীরের অতিরিক্ত ওজন নিয়ে অনেকেরই সম্যাসা হয়ে থাকে। নিয়মিত দুইকোয়া রসুন পানিতে ভিজিয়ে রেখে পানিসহ রসুন খেলে দ্রুত ওজন কমে যেতে সাহায্য করবে। রসুন শরীরে স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখে। খাওয়ার রুচি বেশি থাকে না এই রসুন খাওয়ার ফলে। পেটের চর্বি কমাতে সাহায্য করে এবং শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান দূর করতে সাহায্য করে।

তাই সবচেয়ে বেশি রসুনের উপকার পেতে কাঁচা রসুন চিবিয়ে খেতে হবে। তবে প্রয়োজনের বেশি রসুন খাওয়াও আমাদের শরীরের জন্য ঠিক নয়। অতিরিক্ত রসুন খেলে এর দূর্গন্ধে বমি আসার সম্ভবনা বেশি।  


Related Post: মহৌষধ আদা খাওয়ার নিয়ম


নিচে কমেন্টস বক্সে আর্টিকেল বিষয়ে মতামত দিন

শেয়ার করার মাধ্যমে আপনার বন্ধুদের এই আর্টিকেল বিষয়ে জানার সুযোগ করে দিন

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.