কিভাবে বুঝবেন সব জানাই কল্যানকর নয়

একদিন এক যুবক হযরত মুসা আলাইহিওসাল্লামের কাছে এসে বলল, হে মুসা, তুমি তো আল্লাহর প্রতিনিধি। তুমি সমস্ত জ্ঞান জান এবং বোঝো। আমার পশুপাখির ভাষা বোঝার খুব শখ। তুমি আমাকে এই ভাষা বোঝার ক্ষমতা দাও।মুসা (আ) তাকে নিরুৎসাহিত করার চেষ্টা করলেন। কারন তিনি বুঝতে পারছিলেন, এ বিদ্যা জানার পর যুবকটি নিজের উপকারের চেয়ে ক্ষতিই করবে বেশি। কিন্তু মুসা যত নিরুৎসাহিত করছেন তত যুবকের আগ্রহ বেড়ে যাচ্ছে। শেষ পর্যন্ত সে বলল, আর কিছু না হোক, আমি অন্তত আমার গৃহপালিত পশুপাখিদের ভাষা বুঝতে চাই।


Related Post: কবুতর পালন- অল্প পুঁজিতে লাভজনক ব্যবসা


অগত্যা মুসা (আ) আল্লাহকে বললেন। আল্লাহ প্রার্থনা মঞ্জুর করলেন। যুবক তো মহাখুশি। সে বাড়িতে চলে গেল। প্রথম দিনই ভাবল, যে জ্ঞান পেয়েছি এটাকে পরীক্ষা করতে হবে। ভোরবেলা সে যখন ঘুম থেকে উঠল তখন বাড়ির গৃহকর্মী উঠানে দস্তরখান পরিষ্কার করছিল।দস্তরখান থেকে আগের দিনের খাওয়া রুটির অবশিষ্ট এক টুকরো পড়ে গেল। দেখেই ঘরের কুকুর-মোরগ দৌড়ে এল। কিন্তু কুকুর ধরার আগেই মোরগ ঠোকর দিয়ে রুটির টুকরাটা নিয়ে গাছের ডালে উঠে গেল। কুকুর মোরগকে বোঝানোর চেষ্টা করলো, দেখ, তুমি তো কত কিছুই খেতে পার, ধান খেতে পার, চাল খেতে পার। আমি তো ধান, চাল খেতে পারি না। এই রুটির ওপর আমার অধিকার বেশি। তুমি আমাকে এটা দিয়ে দাও। মোরগ বললো, তোমার চিন্তার কোন কারন নেই। কাল আমাদের মালিকের ছাগলটা মারা যাবে। তুমি মৃত ছাগলের হাড় খেতে পারবে।

যুবকটি যেহেতু এখন পশুপাখির ভাষা বুঝতে পারে, কুকুর এবং মোরগের এই কথোপকথন শুনে সে ভাবল, আরে তাই নাকি? তাহলেতো আজই ছাগলটাকে বাজারে বিক্রি করে আসতে হয়। মারা গেলে অন্যের বাড়িতে গিয়ে মারা যাক, আমি কেন লোকসান গুনব? যেই ভাবা সেই কাজ। সে ছাগল বিক্রি করে নগদ টাকা নিয়ে বাড়ি ফিরে এলো। পরদিন সকালবেলা আবারো দস্তরখান থেকে রুটির টুকরা পড়েছে। আজকেও মোরগ সেটা ঠোকর দিয়ে নিয়ে গেল।

কুকুর বোঝালো, তুমি তো কাজটা ভাল করলে না। কাল আমাকে ছাগলের লোভ দেখিয়ে রুটিটা খেলে আবার আজকের রুটিটাও নিয়ে গেলে! বলেছিলে আজ ছাগলটা মারা যাবে, আমি তো ছাগলই দেখছিনা। মোরগ বলল, তুমি মন খারাফ করো না। আগামীকাল মালিকের গাধাটা মারা যাবে। গাধা মারা গেলে তুমি কয়েকদিন এর মাংস খেতে পারবে।যথারীতি আজও তাদের কথা যুবকের কানে গেল। শুনে তো হা হা করে উঠল। সেদিনই সে বাজারে গিয়ে গাধাটাকে বিক্রি করে এল।

তৃতীয়দিন সকাল বেলাও যখন কুকুর না পেল গাধার মাংস, না পেলো রুটির টুকরা, সে খুব ক্ষেপে গেল। পারলে মোরগের ওপর তখনই ঝাঁপিয়ে পড়ে।মোরগ তখন কোনোমতে বললো, দেখ বন্ধু, আমাকে মেরে তো তোমার লাভ নেই। তাঁর চেয়ে আমার কথা শোনো, আগামীকাল আমাদের মালিকের ঘোড়াটা মারা যাবে। দয়া করে আর একটা দিন ধৈর্য্য ধর। কালকেই তুমি আরাম করে ঘোড়ার মাংস খেতে পারবে। যথারীতি পরদিন ঘোড়াও নেই। মালিক শুনে বিক্রি করে ফেলল।

সেদিনও যখন রুটির টুকরাটা মোরগ নিয়ে গেল, কুকুর তখন মোরগকে বলল, তোমার  মত মিথ্যাবাদী আর হয় না। তুমি ভবিষ্যৎ বলতে পার ভেবে আমি প্রতিদিনই তোমার কথায় বিশ্বাস করছি। আর তুমি আমাকে ধোঁকা দিয়েই যাচ্ছ।মোরগ বলল, দেখ আমার কী দোষ! আমি তো ঠিক কথাই বলছি। এখন মালিক যদি ওগুলো বিক্রি করে ফেলে তো আমি কী করতে পারি? যাই হোক আর তোমার চিন্তা নেই। এবার আমাদের মালিক নিজেই মারা যাবে। তাঁর শেষকৃত্য উপলক্ষে যে ভোজ হবে, তাঁর উচ্ছিষ্ট  খাবার তুমি একমাস খেয়েও শেষ করতে পারবে না।

এবার তো যুবকের দিশেহারা অবস্থা। এখন সে কী করবে? অন্যগুলোকে বিক্রি করে যেভাবে ক্ষতি পুষিয়ে নিয়েছে এখন তো আর তা করতে পারবে না। দৌড়ে গেল সে মুসার কাছে। ঘটনা খুলে বললো। আমাকে বাঁচাও। মুসা বললেন, দেখ, আমার এখন কিছু করার নেই। তোমার নিজের ক্ষতি তুমি নিজেই করেছ। তুমি ক্ষুদ্র লাভের জন্যে বৃহত্তর লাভকে জলাঞ্জলি দিয়েছো। কারন ছাগলটা ছিল তোমার গাধার সদকা, গাধাটা ঘোড়ার সদকা আর ঘোড়াটা ছিল তোমার সদকা। যদি ছাগলকে মৃত্যুর হাতে ছেড়ে দিতে তবে গাধা, ঘোড়া এবং তুমি বাঁচতে। ছোটটিকে যেহেতু ছাড়তে পার নি, এখন তোমার আর কোন উপায় নেই।

একথা শুনে সে মৃত্যু যন্ত্রনায় সেখানেই কাতরাতে লাগল। তাকে আত্নীয়স্বজনরা খাটিয়ায় করে নিয়ে এল। পরদিন সকালে সে মারা গেল।  


Related Post: কোয়েল পাখি পালন- অল্প পুঁজিতে লাভজনক ব্যবসা


নিচে কমেন্টস বক্সে আর্টিকেল বিষয়ে মতামত দিন

শেয়ার করার মাধ্যমে আপনার বন্ধুদের এই আর্টিকেল বিষয়ে জানার সুযোগ করে দিন